শিরোনাম :
মুক্তিযোদ্ধাদের স্বপ্নে আবার জ্বলে উঠুক আমাদের বাংলাদেশ ইসলামপুরে এফ এইচ খান বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের শিক্ষাথীদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ ইসলামপুরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে শিক্ষককে মারধর ভোক্তাদের ভিন্নধর্মী ক্যাটারিং অভিজ্ঞতা দিতে হুয়াওয়ের সাথে সোডেক্সো প্রায় ২০০ এর অধিক মৃতের কবর খনন করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে জুয়েল ও সহযোগী হিমেল গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়ির দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত স্যামসাং আনপ্যাকড ইভেন্ট-ওয়েলকাম টু দ্য এভরিডে এপিক শহিদ মিনারের দাবীতে ইসলামপুরে ৯৭ব্যাচের মানববন্ধন এমদাদুল হক খান চান স্যার স্মৃতি ফাউন্ডেশনের শীতবস্ত্র বিতরণ নৌকা হলো উন্নয়ন ও ভাগ্য পরিবর্তনের প্রতিক,ব্যক্তিকে নয় নৌকাকে ভালোবাসি


‘নেটওয়ার্কিং, সিস্টেমস অ্যান্ড সিকিউরিটি’ বিষয়ক সপ্তম আন্তর্জাতিক সম্মেলন আয়োজন

সম্প্রতি, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ভার্চুয়ালি আয়োজন করেছে ‘নেটওয়ার্কিং, সিস্টেমস অ্যান্ড সিকিউরিটি’ বিষয়ক সপ্তম আন্তর্জাতিক সম্মেলন (৭ম এনসিসস ২০২০)।

এই সম্মেলনটি ২২ থেকে ২৪ ডিসেম্বর, ২০২০ তারিখ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনটি শিক্ষা, শিল্প ও সরকার-এর, সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের গবেষক, প্র্যাকটিশনার, ডেভেলপার এবং ব্যবহারকারীদের জন্য নতুন গবেষণা চিন্তা ও গবেষণালব্ধ ফলাফল নিয়ে আলোচনা, উপস্থাপন এবং পারস্পারিক চিন্তা ভাবনা আদান-প্রদানের একটি ফোরামে পরিণত হয়।   

সম্মেলনে মূল বক্তাগণ শিক্ষা ও শিল্প খাতে কম্পিউটার নেটওয়ার্কস, নেটওয়ার্কিং সিস্টেমস এবং সিকিউরিটি বিষয়ক তাত্ত্বিক এবং পরীক্ষামূলক গবেষণার সাম্প্রতিক অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করেন।

সম্মেলনটিতে নলেজ গ্রাফ, ম্যালিশাস সিকিউর প্রোটোকলগুলোর সীমাবদ্ধতা, আইওটির যুগে এম্বেডেড এবং সাইবার-ফিজিক্যাল সিস্টেমের (সিপিএস) ক্রস-লেয়ার সিকিউরিটি এবং কম্পিউটার প্রোগ্রাম সিন্থেসিসের জন্য মেশিন লার্নিংসহ বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরা হয়। এনসিসস বাংলাদেশের একমাত্র সম্মেলন, যা কিনা এসিএম চ্যাপ্টারের প্রযুক্তিগত সহ-পৃষ্ঠপোষকতায় অনুষ্ঠিত হয় এবং এর প্রসিডিংস এসিএম ডিজিটাল লাইব্রেরিতে হোস্টিং হয়।

দুই দিনব্যাপী আয়োজিত এই সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, বাংলাদেশ, অস্ট্রেলিয়া এবং সৌদি আরব সহ সারাবিশ্বের অসংখ্য বক্তাদের অংশগ্রহণে মোট ২১টি অধিবেশনে অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন প্রায় ১০০ জন অংশগ্রহণকারী, যাদের মধ্যে ছিলেন নিবন্ধিত বক্তা এবং সংগঠকসহ আরও অনেকে।

উপস্থিত বক্তাদের মধ্যে ছিলেন হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের চিফ টেকনিক্যাল অফিসার জেরি ওয়াং শিউ।  তিনি আইসিটি খাত এবং দেশজুড়ে ডিজিটাল প্রযুক্তির বিকাশ নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি বলেন, ‘বহু দশক ধরে  আমরা প্রতিটি মানুষ, প্রতিটি বাড়ি এবং প্রতিষ্ঠানে ডিজিটাল প্রযুক্তি পৌঁছে দেয়ার মাধ্যমে সম্পূর্ণরূপে কানেক্টেড ও ইন্টেলিজেন্ট বিশ্ব গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছি। বাংলাদেশ আমাদের এই প্রচেষ্টার একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ।

আমরা চাই বাংলাদেশের মানুষ প্রযুক্তি দ্বারা ক্রম পরিবর্তনশীল এই বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলুক। বাংলাদেশ দ্রুতগতিতে আইসিটি বিকাশের ফলে অভিনব ডিজিটাল প্রযুক্তি গ্রহণ এবং এর সুবিধা উপভোগ করছে, যা সত্যিই অনুপ্রেরণাদায়ক।’ 

বিভিন্ন শিক্ষা, গবেষণা, এবং শিল্প বিশেষজ্ঞগণ এই সম্মেলনে মূল বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। যাদের মধ্যে ছিলেন: ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাস, অস্টিনের স্কুল অব ইনফরমেশনের বিল অ্যান্ড লুইস স্যুট অধ্যাপক ইং ডিং, পার্ডু ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড স্ট্যাটিস্টিকসের অধ্যাপক ক্রিস ক্লিফটন, ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া, আরভাইনের ডিপার্টমেন্ট অব মেকানিক্যাল অ্যান্ড অ্যারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ডিপার্টমেন্ট অব ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কম্পিউটার সায়েন্সের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল ফারুক, রাইস ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্সের অধ্যাপক ক্রিস জারমাইন, পেনসিলভেনিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ রাফিউল হুসেইন, আইবিএম আলমাদেন রিসার্চ সেন্টারের স্পিচ অ্যান্ড এনএলপি প্রোডাক্টস-এর মাস্টার ইনভেন্টর জালাল মাহমুদ, ইউনিভার্সিটি অব মিনেসোটার কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং -এর  সহকারী অধ্যাপক জুনায়েদ সাত্তার এবং ডার্টমাউথ কলেজের কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শাগুফতা মেহনাজ।

A House of M.R.Multi-Media Ltd
Design & Development By ThemesBazar.Com