শিরোনাম :
অপু-নিরবরা শুটিং শেষ না করে ফিরে এলেন একই রোল নিয়ে যাবে পরের ক্লাসে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা মরিচা ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রী’র প্রকল্প আশ্রয়ন-২ এর আয়তায় ছিন্নমুল গৃহহীন পরিবার কে পুনর্বাসন মাগুরায় মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন সুনামগঞ্জ পৌরসভায় ১৭ কোটি টাকা ব্যয়ে পৌর পানি শোধনাগারের উদ্বোধন বীরগঞ্জের ঝাড়বাড়ী গড়ফতু ডাঙ্গায় মহিলা মহিলায় দাঙ্গা থানায় স্বর্নলংকার ছিনতাইয়ের অভিযোগ। লক্ষণাবন্দ ইউনিয়ন বিএনপির বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত ঝিনাইদহে চলছে ভন্ড কবিরাজদের চিকিৎসার নামে প্রতারনা সরিষাবাড়ীতে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে মাস্ক বিতরণ মেয়র প্রার্থীর আসন্ন দিরাই পৌরসভা নির্বাচন, মেয়র পদে আওয়ামীলীগ বিএনপির অর্ধডজন প্রার্থীর দৌঁড়ঝাপ


“আজ নন-টেক চীপ ইন্সট্রাক্টর পদ সৃজন ও আলাদা অধিদপ্তরের দাবীতে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরে অবস্থান কর্মসুচি”

আজ কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের সচিব মোঃ আমিনুল ইসলাম খান কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরে আসবেন। টিএসসি শিক্ষাক্রমকে পলিটেকনিক হতে আলাদা করে আলাদাভাবে অধিদপ্তর,মহাপরিচালক,পরিচালক তথা আলাদা প্রশাসন গঠন সহ সদ্য বঞ্জিত ইনঃ ননটেক পদের চীপ ইনঃপদ সৃজন পদোন্নতির দাবীতে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরে আজ অবস্থান কর্মসুচি পালন করবেন পদ বঞ্জিত ননটেক চীফ ইন্সট্রাক্টররা।

কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরাধীন ৬৪টি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ সমূহের বাংলা, ইংরেজি, গনিত,পদার্থ ও রসায়ন বিষয়ে ইন্সট্রাক্টর হিসাবে কর্মরত। নিয়োগ কালীন সময়ে নবম গ্রেটে নিয়োগ প্রদান করা হয়। কিন্তু অপ্রিয় সত্যি এই যে একুশ বছর যাবৎ নবম গ্রেটের শিক্ষক হিসাবে কর্মরত আছেন এই শিক্ষকগন। কোন রকম টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেট ভাগ্যে জুটেনি এই সব শিক্ষকদের।

সম্পতি নিয়োগবিধি,অর্গানোগ্রাম সংশোধন ও কারিগরি শিক্ষা গতিশীল করার লক্ষ্যে ১০০ টি নতুন ও পুরাতন ৬৪ টি টিএসসিতে প্রয়োজনের নিরিখে উচ্চতর গ্রেটের টেকনিক্যাল শিক্ষকদের প্রমোশন পদসহ ৯ হাজারের অধিক রাজস্ব খাতে পদ সৃজন করা হয়েছে। কিন্তু অবাক হবার মতো সত্যি নন-টেক ইন্সট্রাক্টরগনের উচ্চতর গ্রেডে বা প্রমোশনের কোন উচ্চতর পদ সৃষ্টি করা হয়নি। বরং নন-টেকনিক্যাল শিক্ষকদের পদ বন্চিত করা হয়েছে। যা অমানবিক ও চরম অসম্মানের।

এই সিদ্ধান্তে নন-টেকনিক্যাল শিক্ষকগনের আতœসম্মান ও সামাজিক মর্যাদা চরম ভাবে ক্ষুন্ন করা হয়েছে। এই অপমানে নন-টেক শিক্ষকরা ক্ষোভে দুঃখে অবস্থান কর্মসুচি পালন করতে বাধ্য হয়েছেন বলে জানান শিক্ষকরা।

জানতে চাওয়া হয়েছিল তাদের দাবী ইতি পূর্বে সচিবকে জানিয়েছেন কিনা ? উত্তরে শিক্ষক নেতারা জানান আমরা সচিব স্যারে সাথে দেখা করে আমাদের দাবীর কথা জানিয়েছিলাম সচিব স্যার আমাদেরকে কথাও দিয়েছিলেন কিন্তু আমাদের দাবী পূরণ হয়নি।

অলাদা অধিদপ্তর কেন চান জানতে চাওয়া হলে তারা বলে এই অধিদপ্তর আমাদের কোন কাছে আসে না। এই অধিদপ্তর তো আমাদের নয় ঐ কর্মকর্তাদের তারা চেয়ারে বসে থেকে আমাদেরকে মানুষ মনে করেন না। অধিদপ্তকে তারা তাদের নিজস্ব সম্পত্তি মনে করেন। আমরা ঐ দ্বায়িত্বহীন,দাম্ভিক কর্মকর্তাদের অধীনে থাকতে চাই না। আমরা দীর্ঘ দিন থেকে অসাধু কর্মকর্তদের অপসারন দাবী করে আসছি কিন্তু কর্তৃপক্ষ আমাদের কথার কোন গুরুত্ব দেয়নি অনেকটা বাধ্য হয়েই অলাদা অধিদপ্তর চাইচ্ছি।

শিক্ষকরা ক্ষেভের সাথে বলেন আমাদের নায্য দাবী আদায়ের জন্য অবস্থান কর্মসুচি পালন করতে হচ্ছে যা কি না বড়ই দুঃখের যেটা আমাদের এমনিতেই পাবার কথা। অবস্থান কর্মসূচিতে যদি আপনাদের দাবী পূরণ না হয় কি করবেন জানতে চাওয়া হলে শিক্ষকরা বলেন, আমাদের দাবী মানা না হলে আমরা লাগতার কর্মসূচিতে যাবো আমাদের অধিকার আদায় করেই ছাড়বো।

A House of M.R.Multi-Media Ltd
Design & Development By ThemesBazar.Com