মঠবাড়িয়ার বলেশ্বর নদীর মাছুয়া রুটের বন্ধ স্টিমার সার্ভিস চালুর দাবিতে এলাকাবাসির মানববন্ধন

প্রকাশিত: ৬:০৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২১, ২০২৩

বর্তমান খবর,মঠবাড়িয়া(পিরোজপুর)প্রতিনিধি : পিরোজপুরেরর মঠবাড়িয়ার বলেশ্বর নদীর বড়মাছুয়া-ঢাকা নৌরুটের বন্ধ স্টিমার সার্ভিস পূনরায় চালুর দাবিতে ভূক্তভোািগ এলাকাবাসি মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছেন। শনিবার দুপুরে বড়মাছুয়া স্টিমার ঘাট সড়কে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। এতে দক্ষিণ উপকূলীয় কয়েক উপজেলার ভূক্তভোগি জনসাধারণ অংশ নেন।

স্থানীয় বড়মাছুয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. নাছির হোসেন হাওলাদার এর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলমগীর হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা সুনীল সমদ্দার, ইউপি সদস্য কাইয়ূম হোসেন, সমাজসেবক ওহিদুজ্জামান ডালিম, প্রবীণ শিক্ষক নূরুল হক প্রমুখ।

সমাবেশে বড়মাছুয়া রুটে স্টিমার সার্ভিস দ্রুত চালুর দাবি জানিয়ে বক্তারা বলেন, ১৯৮৮ সালের ১১ নভেম্বর তৎকালীন বিআইডবিাøউটিএ চেয়ারম্যান মেজর(অব) রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম মঠবাড়িয়ার বলেশ্বর নদীর বড়মাছুয়ায় স্টিমার সার্ভিস চালু করেন। স্টিমার চালু হওয়ার পর উপকূলীয় জনসাধারণ এ নৌরুটে স্বাচ্ছন্দে স্টিমারে যাতায়াত ও পণ্য পরিবহন করে আসছিলেন। কিন্তু বিআইডব্লিটিএ এর কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা যাত্রী সংকটের কারণ ও ক্ষতি দেখিয়ে এ সার্ভিস বন্ধের সুপারিশ করে। এ কারনে গত বছরের ২২ আগস্ট মোড়েলগঞ্জ-মঠবাড়িয়া-ঢাকা রুটে স্টিমার সার্ভিস বন্ধ ঘোষণা করে বিআইডব্লিউটিএ। এর ফলে সুন্দরবন উপকূলীয় বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ,পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার বড়মাছুয়া, ভাণ্ডারিয়া উপজেলার চরখালী, পিরোজপুরের হুলারহাট, কাউখালী, ঝালকাঠি, বরিশাল এবং চাঁদপুর হয়ে ঢাকাগামী যাত্রী সাধারণ যাতায়াত ও পণ্য পরিবহনে গত পাঁচমাস ধরে চরম ভোগান্তিতে পড়েন।

এ বিষয়ে বড়মাছুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাসির হোসেন হাওলাদার বলেন, বড়মাছুয়া-মোড়েলগঞ্জ-ঢাকা নৌরুটে চলাচলকারী স্টিমারে পর্যাপ্ত যাত্রীদের যাতায়াত থাকলেও বিআইডব্লিউটিএ এর কিছু অসৎ কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা সরকারকে এ রুটে ক্ষতি দেখিয়ে পেিরকল্পিতভাবে স্টিমার সার্ভিস বন্ধ করে। ফলে সুন্দরবন উপকূলীয় অঞ্চলের নি¤œ আয়ের মানুষ এবং দক্ষিণাঞ্চলের ব্যবসায়ীরা পণ্য পরিবহনে চরম ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন।