সীমান্তে সর্বোচ্চ সতর্কতা

প্রকাশিত: ১০:৪৭ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২২

বর্তমান খবর : নাইক্ষ্যংছড়িতে মিয়ানমার সীমান্তের ওপারে থেমে থেমে গুলি চলছেই। শনিবার গভীর রাত পর্যন্ত গোলাগুলির শব্দ পাওয়া গেছে। ঢাকায় উচ্চ পর্যায়ে এক বৈঠকের পর সীমান্তে সর্বোচ্চ সতর্কতার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গতকাল সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সীমান্তের বেশ কয়েকটি এলাকায় মুহুর্মুহু গুলি ও বোমা বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পান স্থানীয়রা। পরে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকেও ভারী গোলাবর্ষণের শব্দ শোনা গেছে। গোলাগুলির শব্দে ঘুমহারা সীমান্তের এপারে বসবাসরত বাংলাদেশি এবং আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গারা। আতঙ্কে ঘর থেকে কেউ খুব একটা বের হচ্ছেন না। এমন পরিস্থিতিতে নাইক্ষ্যংছড়ি ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু সীমান্তে বসবাসকারী ৩০০ পরিবারকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়ার চিন্তা করছে স্থানীয় প্রশাসন।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মুহুর্মুহু বিস্ফোরণে তটস্থ গ্রামগুলো হলো- তুমব্রু, কোনারপাড়া, বাইশফাঁড়ি, তুমব্রু হেডম্যানপাড়া, ভাজাবুনিয়া, মধ্যমপাড়া, উত্তরপাড়া, বাজার পাড়া, গর্জনবুনিয়া সদর ইউনিয়নের দক্ষিণ চাকঢালা, সাপমারা ঝিরি ও জামছড়ি। ভয়ে গত কয়েকদিনে এসব সীমান্ত সংলগ্ন গ্রামের অনেক বাসিন্দা এলাকা ছেড়ে দূরের আত্মীয়দের বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলেন। গোলাগুলির শব্দ কিছুটা কমে আসায় গতকাল তাদের কেউ কেউ ঘরে ফিরেছিলেন। তবে সকালে ফের গোলাগুলির শব্দে তারা আবার আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন।

ঘুমধুম ইউনিয়নের বাসিন্দা অনুময় তঞ্চঙ্গ্যা জানান, গত কয়েকদিনের মতো গতকালও সীমান্তে বোমা ও গুলির শব্দ শুনেছেন তিনি। ওপারে রাতদিন গোলাগুলি ও বোমার আওয়াজে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন। ভয়ে কেউ ঘর থেকে বের হতে পারছেন না বলেও জানান তিনি। ঘুমধুম ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য দিল মোহাম্মদ ভুট্টো বলেন, ‘মিয়ানমারে গুলির শব্দে এলাকাবাসী চরম আতঙ্কে আছে। ভয়ে কেউ কোনো কাজেই সীমান্তের কাছাকাছি যেতে পারছেন না।

কৃষকরা চাষাবাদ করতে পারছেন না।’ ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ জানান, গতকাল সকালে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয়ে সীমান্তে উদ্ভূত পরিস্থিতে জনপ্রতিনিধিদের করণীয় শীর্ষক একটি জরুরি সভা ডাকা হয়। ইউএনও সালমা ফেরদৌসের ডাকা সভায় উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের মধ্যে শুধু ঘুমধুম ও সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা উপস্থিত ছিলেন। সীমান্তে পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় সেখান থেকে ৩০০ পরিবারকে সরিয়ে নেওয়ার চিন্তাভাবনা করছে প্রশাসন।

সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়াসংলগ্ন তুমব্রু, ঘুমধুম, হেডম্যানপাড়া, ফাত্রা ঝিরি, রেজু আমতলী এলাকায় বসবাসকারী এই পরিবারগুলোর প্রায় দেড় হাজার লোককে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া যায় কি না, পর্যালোচনা চলছে। তবে বৈঠকে জানানো হয়, ঘুমধুম ইউনিয়নে কোনো আশ্রয় কেন্দ্র না থাকায় পরিবারগুলোকে সরিয়ে নেওয়া কঠিন হয়ে যাবে। এ ছাড়া স্কুলগুলোতেও থাকার কোনো পরিবেশ নেই। এ পর্যায়ে কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই বৈঠক শেষ হয়।’ বর্তমান পরিস্থিতির বিষয়ে ঘুমধুম ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আবসার ইমন বলেন, সীমান্তের ওপারে মিয়ানমারের বাহিনী এবং বিদ্রোহীদের মধ্যে তুমুল লড়াই চলছে। বিশেষ করে ঘুমধুমের কোনারপাড়াসহ আটটি গ্রাম আর সদর ইউনিয়নের দক্ষিণ চাকঢালাসহ বিভিন্ন পয়েন্টে গোলাগুলি চলছে। তাঁদের ইউনিয়নের লোকজন আতঙ্কগ্রস্ত। বিশেষ করে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের নিয়ে সবাই চিন্তিত।

এই দুই ইউপি চেয়ারম্যান আরও জানান, সীমান্তে গোলাগুলির কারণে সীমান্ত সড়কের কাজ বন্ধ হয়ে গেছে ১৫-২০ দিন আগেই। সীমান্তে বিভিন্ন বাগান ও খেত-খামারের কাজও বন্ধ। এতে বহু মানুষের জীবিকা বন্ধ হয়ে গেছে। বান্দরবানের জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরিজী বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘুমধুম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, মেম্বার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, যাতে জনগণকে নিরাপদে থাকার জন্য নির্দেশনা দেয়। আর আমরা জরুরি সভা আহ্বান করেছি। সবাই বসে সিদ্ধান্ত নেব কীভাবে স্থানীয়দের নিরাপদ রাখা যায়। সরকার জনগণের নিরাপত্তাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে। এক মাসেরও বেশি সময় ধরে মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও আরাকান বিদ্রোহীদের মধ্যে সংঘর্ষ চলাকালে কয়েকবার বাংলাদেশের অভ্যন্তরে এসে গোলা পড়েছে। এতে একজন নিহত হওয়ার পাশাপাশি বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

গত শুক্রবার রাতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর যুদ্ধবিমান থেকে ছোড়া মর্টার শেল ও গুলির খোসা তুমব্রু সীমান্তের নো ম্যানস ল্যান্ডে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় শিবিরে এসে পড়ে। এতে সাদিয়া নামে আট বছর বয়সী রোহিঙ্গা শিশু ও ইকবাল নামে ১৫ বছর বয়সী কিশোর নিহত হয়। আহত হন পাঁচজন। এরপর প্রাণভয়ে এলাকা ছাড়ে প্রায় ৪০ পরিবার।