আরিফুলের খপ্পরে হরিরামপুরের অসংখ্য পরিবার

প্রকাশিত: ৫:০৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ৬, ২০২২

গভীর নলকূপ দেয়ার নামে চল্লিশ (৪০) টি পরিবারের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ

বর্তমান খবর,নিজস্ব প্রতিনিধি : মানিকগঞ্জের হরিরামপুর থানার গলা ইউনিয়নে আরিফুল হক নামের এক প্রতারকের খপ্পরে পড়ে গভীর নলকূপ প্রত্যাশী বেশকিছু পরিবার প্রতারণার শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

প্রতারণার শিকার এসব পরিবারের অভিযোগ গলা ইউনিয়নের ছানা ফকিরের ছেলে আরিফুল স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাদের নাম ভাঙ্গিয়ে বিশুদ্ধ পানির অভাবে থাকা বেশ কিছু পরিবারকে গভীর নলকূপ স্থাপন করে দেয়ার আশ্বাসে তাদের কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা নগদ অর্থ হাতিয়ে নেয়।

কিন্তু তিন বছর পার হয়ে যাওয়ার পরেও নলকূপ দিতে না পারায় ওইসব পরিবার তার কাছে দেয়া অর্থ ফেরত চাইলে অনেককেই বিভিন্ন সময়ে হুমকি-ধামকি এমনকি অনেকের উপর শারীরিক হামলা চালিয়েছেন বলে জানা গেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, আরিফুল হক মূলত একজন দালাল প্রতারক টাইপের মানুষ। স্থানীয় কিছু নেতাদের সাথে উঠাবসা করার সুবাদে বিভিন্ন সময়ে গভীর নলকূপ, ভিজিএফ কার্ড, বয়স্ক ভাতা, আশ্রায়ন প্রকল্পের ঘর পাইয়ে দেয়া সহ বিভিন্ন রকম সুযোগ-সুবিধা দেয়ার নামে এলাকাবাসীর কাছ থেকে বিভিন্ন সময় লাখ লাখ টাকা প্রতারণা করেছে। কিন্তু পরবর্তীতে যারা টাকা চাইতে গিয়েছে তারাই বিভিন্ন ভাবে লাঞ্চিত হয়েছে আরিফুলের কাছ থেকে।

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রুপচান মোল্লা নামের একজন বয়স্ক লোক গভীর নলকূপের জন্য দেয়া টাকা চাইতে গেলে তাকে বেদম মারধর করে। মারধরের শিকার বয়স্ক রুপচান মোল্লা নামের ওই ব্যক্তি জানান, নলকূপের জন্য টাকা দেয়ার তিন বছর পার হয়ে গেছে কিন্তু এখন পর্যন্ত নলকূপ অথবা টাকা কোনটিই বুঝিয়ে না দেয়ায় তার কাছে জিজ্ঞেস করেছি বাবা অনেক দিন তো হয়ে গেল নলকূপ পেলাম না অন্তত টাকাটা ফেরত দাও।

টাকা ফেরত যাওয়ার সাথে সাথে তার উপর চড়াও হয় আরিফুল এবং বেধড়ক মারধর করেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। এ ব্যাপারে স্থানীয় থানায় একটি অভিযোগ করেছেন রুপচান মোল্লা।

মানিকগঞ্জের গলা ইউনিয়নে সাল খাই গ্রামের দালাল প্রতারক আরিফুলের প্রতারণার শিকার পরিবারগুলোর স্থানীয় প্রশাসন, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের মাধ্যমে আরিফুলের প্রতারণা, হুমকির প্রতিকার ও তাদের টাকা ফেরত পাওয়ার আশা করেন ভুক্তভোগীরা।